সময়ের দক্ষ অভিনেত্রী শশীর দিনকাল

প্রকাশিত: 1:30 AM, August 24, 2014

সময়ের দক্ষ অভিনেত্রী শশীর দিনকাল

00000000অভি মহিউদ্দিন :
ঈদে এলে স্বাভাবিকভাবেই অভিনয় শিল্পীদের কাজের চাপ বেড়ে যায়। কারণ দেশের প্রতিটি চ্যানেলই তখন নাটক প্রচারে বেশি ব্যস্ত হয়ে উঠে। অন্য অনেকের মতো ব্যস্ততা স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি বেড়ে যায় এই সময়ের দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী শারমীন জোহা শশীরও। শশীর সঙ্গে শুটিং স্পটে কিছুটা সময় কাটানোর জন্য যখন তাকে ফোন করি তিনি তখন সালাহ উদ্দিন লাভলু পরিচালিত ‘পায়েল’ টেলিফিল্মের শুটিং-এ পূবাইলে। রাত প্রায় দশটার সময় পূবাইলে চটের আগা শুটিং স্পটে পেঁৗছালাম। শুভেচ্ছা বিনিময়টা হলো শশীর সঙ্গে মুচকি হেসে দিয়ে ইশারায়। কারণ সেদিনই ছিলো টেলিফিল্মটির শেষদিন। নাহ্, কোনরকম সুযোগই পাইনি কথা বলার। পরিচালক সালাহ উদ্দিন লাভলু জান প্রাণ দিয়ে চেষ্টা করছেন খুব দ্রুত কাজ শেষ করে শিল্পীদের বিদায় দিতে। কারণ তার ইউনিটে যারা কাজ করছেন তাদের প্রত্যেকেরই পরেরদিন শুটিং আছে। যাইহোক ঘড়ির কাঁটায় যখন রাত ১১.৩০ ঠিক সে সময় শুটিং শেষ হলো। একই গাড়িতে চড়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলাম আমি, আমরা এবং আরো অনেকে। প্রশ্ন রাখি, খুব চাপ যাচ্ছে এবার, তাইনা? জবাবে শশী খুব ঝটপট বলে উঠলেন, ‘নাহ্, তেমন চাপ না। আমি খুব বেশি চাপ নিয়ে কাজ করতে পাারিনা। এই টেলিফিল্মের কাজটি অনেকটা হঠাৎ করেই করা। কোন সিডিউল ছিলোনা। সত্যি বলতে কী লাভলু ভাইয়ের কাজের প্রতি সবসময়ই আমার গভীর আগ্রহ থাকে। কারণ তিনি এতো গুছিয়ে কাজ করেন যে তার সাথে কাজ করলে একজন শিল্পী অনেক কিছুই শিখতে পারেন। আমি মনেকরি একজন শিল্পী যদি সত্যিকারের অভিনেত্রী হতে চান তাহলে বছরে দু’তিনটি নাটকে কাজ করা উচিত লাভলু ভাইয়ের নির্দেশনায়।’ আবার প্রশ্ন রাখি কেন বলুনতো? ‘কেনই বা নয়’ বললেন শশী। আবার শুরু করেন , ‘ লাভলু ভাই মঞ্চে থেকে আসা একজন অভিনেতা , পরিচালক। তিনি বেশ ভালো করেই জানেন শিল্পীর কাছ থেকে কিভাবে অভিনয় বের করে আনতে হয়। ‘ টেলিফিল্মেতো আপনার সহশিল্পী মীর সাবি্বর। কেমন লাগে তারসঙ্গে কাজ করতে? ‘ভীষণ ভালোলাগে। কারণ আমি মনেকরি জাহিদ ভাই, সেলিম ভাই হাকিম ভাইদের পর একমাত্র সাবি্বর ভাই তেমন একজন অভিনেতা যার উপর নির্মাতারা যে কোন চরিত্রে অভিনয়ের জন্য নির্ভর করতে পারেন। আমি তার ভীষণ ভক্ত। একজন শিল্পীকে কিভাবে সম্মান দিয়ে কথা বলতে হয়, কিভাবে সহযোগিতা করতে হয় , তা তিনি বেশ ভালো জানেন, বুঝেন।’ এদিকে শশী আরও জানান এরইমধ্যে তিনি মুহাম্মাদ আশিকুর রহমানের পরিচালনায় ও রওনক হাসানের রচনায় ধারাবাহিক নাটক ‘আকাশ চুরি’ তে অভিনয় করছেন। এতে তার সহশিল্পী আছেন মীর সাবি্বর, রওনক হাসানসহ বাঘা বাঘা আরও অনেক অভিনয়শিল্পী। কেমন লাগছে নাটকটিতে অভিনয় করতে? শশীর জবাব, ‘আশিকের সঙ্গে এটা আমার প্রথম কাজ। অনেক গুছানো তিনি। বেশ ভালো একজন পরিচালক। আর সহশিল্পী হিসেবে যারা আছেন তারাও বেশ দারুন। আমি ভীষণ উপভোগ করছি। আমার বিশ্বাস একেবারেই ভিন্ন ঘরানার গল্পের এই নাটকটি দর্শকের ভালোলাগবে। ‘ এবার ভিন্ন প্রসঙ্গে যাই। শুনলাম চলতি বছরই বিয়ে করতে যাচ্ছেন! ‘যদি পাত্র পাই তাহলে চলতি বছর নয় চলতি সপ্তাহেই বিয়ে করবো। আমার বাবা মা ভাই পাত্র দেখছেন, খুঁজনে। মনেরমতো পেলেই বিয়ে করবো। প্লিজ, সবাই দোয়া করবেন।’ আপনার জন্মদিনতো ৭ ডিসেম্বর। কি করেন এই দিনটিতে? ‘তেমন কিছুই করিনা। আমার বন্ধু বান্ধবদের সময় দেই। বাবা মা আর আমার একমাত্র বড় ভাই সূর্য্য ভাইয়াকে সময় দেই। আমার পৃথিবীটা আসলে খুব বড় নয়। তবে ভালোবাসার পৃথিবীটা অনেক বড়। দর্শক আমাকে এতো ভালোবাসেন তা আউটডোরে কোন শুটিং-এ গেলে মন থেকে অনুভব করতে পারি। ‘ ‘ওশান বস্নু’র শুটিং-এর সময় নিশ্চয়ই টের পেয়েছিলেন? ‘হুম, ঠিক বলেছেন আপনি। এই নাটকের শুটিং ছিলো কক্সবাজারে। সেখানে আমার ভ্কত দর্শকের প্রন্ডচ ভীড়ে শেষ পর্যন্ত ইনডোরে শুটিং করতে হয়। তবে ভক্ত দর্শকের ভালোবাসাকে আমি শ্রদ্ধা করি। তাদের কারণেই আমি শশী, অভিনেত্রী শশী। তারা ভালো না বাসলে ‘লাইফ ইজ বিউটিফুল’ হয়তো হতো তবে এতো ছন্দমময়, কাব্যময় হতোনা।’ শশীর খুব বেশি টান চলচ্চিত্রের প্রতি। ‘হাজার বছর ধরে’, ‘অস্তিত্দত্বে আমার দেশ’র মতো আরো ভালো কিছু ছবি করতে চান। শশীর স্বপ্ন পূরণ হোক। ‘ও হ্যাঁ, বিদায় শশী, আবার দেখা হবে, কথা হবে।’ শশী চলে গেলেন নিজের বাসার গন্তব্যেও দিকে। আমি তখন গভীর রাতে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ঢাকার যানজটমুক্ত পরিবেশকে একটু উপভোগ করার চেষ্টা করছি। সেলফোনে তখন শশীর নাম্বার থেকে ফোন। রিসিভ করলাম। শশী বলে উঠলেন, ‘ভাইয়া, বাসায় ফিরে প্লিজ ফোন দিবেন। তা না হলে আমি দুশ্চিন্তায় থাকবো।’ শশীর এমন কথায় ভালোলাগলো, শিল্পীরা নিজেদের প্রতি সচেতন হন জানি। কিন্তু একজন সাংবাদিকের দেখ ভালো’র দায়িত্ব যে তাদেরও রয়েছে তা শশী নতুন করে সেদিন আমার কাছে প্রমাণ করলেন। আমি তা সবাইকে জানিয়ে দিলাম। ভালো থাকবেন শশী।
সূত্র: করোতোয়া

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 22 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ