বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতিতে তোলপাড়

প্রকাশিত: 1:30 AM, February 5, 2016

আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ এমএ লতিফ কর্তৃক ব্যানার ফেস্টুনে বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করার ঘটনায় সমগ্র চট্টগ্রামে ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এমএ লতিফ এমপির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা দায়ের করে তাকে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগসহ দলের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা।

অন্যদিকে এমএ লতিফ দাবি করেছেন তিনি ছবি বিকৃতির সঙ্গে জড়িত নন। তার নির্বাচনী এলাকার কোনো কর্মী-সমর্থক তার নাম দিয়ে ছবি বিকৃত করে ব্যানারে ফেস্টুনে তা প্রচার করেছে।

গত ৩০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর চট্টগ্রাম সফর উপলক্ষে বন্দর পতেঙ্গা আসনের সংসদ সদস্যের নির্বাচনী এলাকায় এমএ লতিফের নামে বিভিন্ন ব্যানার ফেস্টুনে নানা বক্তব্য প্রচার করা হয়। এসব ব্যানারে বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করে প্রচার করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা।

এমএ লতিফের ছবির সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর মুখম-ল জুড়ে দিয়ে এমএ লতিফের প্রচার চালানো হয়েছে বলে নেতা-কর্মীদের অভিযোগ। এমএ লতিফের প্রচারিত ছবিতে দেখা যায় এতে মুখম-ল বঙ্গবন্ধুর হলেও শরীরো বাকী অংশ তার নয়। ছবির মূল শরীরে লম্বা পাঞ্জাবি, চাপা পায়জামা ও পায়ে হাল ফ্যাশনের কালো জুতা পরে বঙ্গবন্ধু দাঁড়িয়ে আছেন। ছবির নিচে সাংসদ লতিফের নামসহ বিভিন্ন উদ্ধৃতি ব্যবহার করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, বঙ্গবন্ধু সাধারণত খাটো পাঞ্জাবির সঙ্গে ঢোলা পায়জামা ও স্যান্ডেল পরতেন। কখনো কখনো ওই সময়কার ডিজাইনের জুতাও পরতেন। ফেস্টুনে বঙ্গবন্ধু যে ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে আছেন দেখানো হয়েছে, সেভাবে বঙ্গবন্ধু কখনো দাঁড়াতেন না।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেছেন, এমএ লতিফের নামে প্রচারিত ব্যানার ফেস্টুনে যে ছবি ব্যবহার করা হয়েছে তা বঙ্গবন্ধুর বিকৃত ছবি। বঙ্গবন্ধু হাসি-ঠাট্টার বিষয় নয়। কিন্তু তাকে নিয়ে একজন সাংসদ রীতিমত মসকরা করেছেন। এ ব্যাপারে এমএ লতিফকে উকিল নোটিশ পাঠানো হবে বলে জানান মহিউদ্দিন চৌধুরী।

এ বিষয়ে সাংসদ এমএ লতিফ বলেন, এই ছবি বিকৃতির সঙ্গে তিনি জড়িত নন। তার নির্বাচনী এলাকার কেউ তার নাম দিয়ে বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃত করে তা ব্যানার ফেস্টুনে প্রচার করা হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার ও বুধবার দিনভর চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ ও এমএ লতিফের ছবিতে জুতা-থুথু নিক্ষেপ করেছেন আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। দুপুরে চট্টগ্রাম মহসীন কলেজ এবং চট্টগ্রাম কলেজে জাগ্রত জনতা নামের একটি সংগঠনের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল করে এমএ লতিফের ছবিতে জুতা এবং থুথু নিক্ষেপের কর্মসূচি পালন করা হয়।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজম রনি বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতির দায়ে এমএ লতিফের শাস্তি দাবি করেছেন। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলম তার ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে শাস্তি চেয়েছেন এমএ লতিফের।

প্রসঙ্গত, এমএ লতিফ এক সময় জামায়াতে ইসলামীর সমর্থক থাকলেও ২০০৮ সালে তিনি আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। দলে যোগ দিয়েই তিনি আওয়ামী লীগের মনোনয়নে বন্দর পতেঙ্গা আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বর্তমানেও তিনি একই আসনের সাংসদ।

 

[the_ad id=”312″]

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 19 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ