সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বীরমুক্তিযোদ্ধা গোলাম রব্বানীর ১৫তম মৃত্যুবার্ষিকীতে অধ্যক্ষ মোঃ শেরগুল আহমেদ’র শোক

প্রকাশিত: 9:32 PM, August 4, 2021

মিজানুর রহমান মিজান:
সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, নির্লোভ নিরহংকার প্রবীন রাজনৈতিক ব্যাক্তিত,¡ বীরমুক্তিযোদ্ধা সাপ্তাহিক গ্রামবাংলার কথা পত্রিকার সম্পাদক-প্রকাশক গোলাম রব্বানীর ১৫তম মৃত্যু বার্ষিকী আজ। এ উপলক্ষ্যে সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক ও দৈনিক সুনামগঞ্জের ডাক’র সম্পাদক-প্রকাশক অধ্যক্ষ মোঃ শেরগুল আহমেদ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। গতকাল সন্ধ্যায় দৈনিক সুনামগঞ্জের ডাক কার্যালয়ে প্রেরীত শোকবার্তায় তিনি মরহুম গোলাম রব্বানীর বর্নাঢ্য জীবনের উপর আলোকপাত করে লিখিত বক্তব্য দেন।
তিনি বলেন,“বর্তমান রাজনীতিতে যে সংকট চলছে তার বহুবিধ কারণের মধ্যে নিশ্চয় রাজনীতির মানুষগুলো এখন আর রাজনীতিতে নেই এবং প্রচন্ডরকম সততার অভাব এতে কারও দ্বিমত থাকবে বলে আমি মনে করিনা। যার ফলশ্রুতিতে রাজনীতি এখন নিজের আখের গোছানো ছাড়া আর কিছুই নয়। আমাদের পূর্বসুরী অনেক রাজনীতিককে দেখার সুযোগ হয়েছে যারা নিতান্তই জনগণ মুখী, নির্লোভ নিরহংকার রাজনৈতিক কর্মী হিসাবে নিজেকে উপস্থাপন করতে বেশী স্বাচ্ছন্দবোধ করতেন। এই দলেরই একজন ছিলেন গোলাম রব্বানী। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে অনেক সুযোগ সুবিধা তার হাতের মুঠোয় থাকা সত্বেও এগুলো তুচ্ছ করে আদর্শে অবিচল থেকে উজানে চলেছেন। তাঁকে কাছ থেকে দেখার তেমন সুযোগ না হলেও যতটুকু দেখেছি তাঁর মধ্যে প্রকৃত নেতার সকল গুণাবলীই যে বিদ্ধমান ছিল নিঃসন্দেহে বলতে পারি। এ প্রেক্ষিতে আমার দেখা একটি ঘটনার কথা উল্লেখ করতে চাই।
সম্ভবতঃ ২০০৩ খ্রীষ্টাব্দের এপ্রিল মাস হবে। সুনামগঞ্জ পৌর কলেজের স্থায়ী ফান্ড গঠনের জন্য কলেজের ততকালীন গভার্নিং বডির সভাপতি হুইপ ফজলুল হক আসপিয়া এম পি একটি সমাবেশ ডাকলেন। সুনামগঞ্জ প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে জেলা শহরের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ প্রশাসনের কর্মকর্তা,ধনাঢ্য ব্যক্তিগণ উপস্থিত হয়েছেন। এর মধ্যে দর্শকসারীর সামনে বসা শহরের সর্বজন গ্রহণযোগ্য রাজনীতিক গোলাম রব্বানী।
অনেক আনুষ্ঠানিকতার পর কলেজের স্থায়ী ফান্ড গঠনের জন্য একটি কমিটি গঠনের প্রস্তাব আসলো। হুইপ সাহেব কোন ধরণের সৌজন্যতা না করেই কমিটির আহবায়ক হিসাবে জনাব গোলাম রব্বানীর নাম প্রস্তাব করলেন এবং সাথে সাথে সভায় উপস্থিত সকলেই প্রস্তাব সমর্থন করলেন। এইদিন আমার একটা বিষয় পরিস্কার হয়েছিলো যে এই সহজ সরল মানুষটি জীবনে আর কিছু অর্জন করুক বা নাই করুক অন্তত মানুষের ভালবাসা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে তা অনায়াসে বলা যায়। পৃথিবীতে মানুষ অনেক কিছুই অর্জন করার জন্য দিন-রাত শ্রম দেয় কিন্তু মানুষের ভালোবাসা অর্জন করা বোধ হয় সবচেয়ে কঠিন কাজ। বিপরীত রাজনীতির মানুষ হয়েও আসপিয়া সাহেব যখন উনার নাম প্রস্তাব করলেন উপস্থিত সবাই একটু হলেও আশ্চর্য হয়েছিল এটা নিঃসন্দেহে বলা যায়।
এই কমিটির একজন সদস্য ছিলাম আমি। তাই কাছ থেকে দেখার সুযোগ হয়েছিল মরহুম গোলাম রাব্বানী সাহেবকে।
কমিটির কার্যক্রমের আপডেট সপ্তাহে একদিন বসে পর্যালোচনা হতো। আহবায়ক হিসেবে মরহুম গোলাম রব্বানী খুবই দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করেন। পরবর্তীতে কলেজের স্থায়ী ফান্ডের জন্য ছাতকের বিশিষ্ট শিল্পপতি জনাব ইঞ্জিনিয়ার সৈয়দ মুনসিফ আলী এক লক্ষ টাকা প্রদান করলে আমাদের কার্যক্রমে কিছুটা ভাটা পরে। শিক্ষাক্ষেত্রে মরহুম গোলাম রব্বানীর অবদান খাটো করে দেখার কোন সুযোগ নাই। সুনামগঞ্জ মহিলা কলেজের প্রতিষ্টালগ্নে ফান্ড সংগ্রহে তাঁর অবদান সুনামগঞ্জবাসী বিশেষ করে যারা শিক্ষার সাথে যুক্ত তাদের কাছে চিরদিন অম্লান হয়ে থাকবে।
মরহুম গোলাম রব্বানীর পথ অনুসরণ করে তাঁরই সুযোগ্য সহধর্মিণী সাবেক এম পি ও বর্তমান পি পি অ্যাডভোকেট শামছুন নাহার বেগম শাহানা রব্বানী দীর্ঘদিন যাবত সুনামগঞ্জ পৌর ডিগ্রি কলেজের গভার্নিং বডির সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন। আজ তাঁর মৃত্যুবার্ষিকীতে পরম শ্রদ্ধা জানাই এবং আত্মার মাগফিরাত কামনা করি”।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 61 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ