‘মহাকাব্যের মুজিব’

প্রকাশিত: 9:27 PM, August 16, 2020

মোহাম্মদ সুয়েবুর রহমান সুয়েব: পুণ্যভূমি টুঙ্গিপাড়া গাঁয়ে ১৯২০ সালে ১৭ই মার্চ সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে শেখ লুৎফুর রহমান ও মহিয়সী নারী সায়েরা খাতুনের ঘর আলোকিত করে জন্মগ্রহণ করেন এক শিশু সন্তান। বাবা-মা আদর করে তাঁকে ‘খোকা’ বলে ডাকতেন। দেশের মানুষের জন্য অত্যন্ত ভালবাসা ও নির্যাতন-নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী হওয়ার চেতনা ও প্রেরণা ছিল শৈশব ও কৈশোর থেকেই। ন্যায় নীতিতে অটল থেকে গরিব, দুঃখি ও মেহনতি মানুষের পাশে থেকে সে দিনের ছোট্ট খোকা -শেখ মুজিবুর রহমান অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে তিনি বঙ্গবন্ধু ও জাতির পিতা খ্যাতি অর্জন করেন।

সংগ্রামী সকল কাজে তাঁর সহধর্মিণী শেখ ফজিলাতুন্নেসা সব সময় বঙ্গবন্ধুকে উৎসাহ, উদ্দীপনা ও প্রেরণা দিয়ে সহযোগিতা করেন।

১৯৭১ সালে ৭ই মার্চের রেসকোর্স ময়দানের বঙ্গবন্ধুর কালজয়ী ভাষণে স্বাধীনতার ডাক দিয়ে জনগণকে সর্বাত্বক অসহযোগ আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত করেন। “এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম”।

বঙ্গবন্ধুর এ কালজয়ী ভাষণে সমগ্র বাংলার মানুষ মুক্তির সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল এবং স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র বাংলাদেশ জন্মলাভ করে। বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু মানেই ইতিহাস, বঙ্গবন্ধু মানেই মহাকাব্য।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট খুনিরা বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের খুন করে জাতির ললাটে এঁকে দিয়েছে কলংকের মসি। এই জঘন্য খুনিদের আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির ব্যবস্থা নিশ্চিত করে জাতিকে কলংকমুক্ত করার জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে উদাত্ত আহবান জানান।

বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য উত্তরসুরী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ধরণিকন্যা ‘শেখ হাসিনা’ উন্নত সোনার বাংলাদেশ গড়ার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। এ দেশের মাটি ও মানুষের উন্নয়ন করাই তাঁর একমাত্র স্বপ্ন। আওয়ামী লীগ নেতা প্রভাষক মোহাম্মদ সুয়েবুর রহমান সুয়েব বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের জান্নাতুল ফেরদৌস দান করার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া চান। এ মহাপ্রয়ানে গভীর শোক ও শ্রদ্ধা এবং শোকাবহ পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

FacebookTwitterEmailWhatsAppLinePrint20200816_211902

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 39 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ