ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদে ও বখাটেদের গ্রেফতারের দাবিতে সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়ক অবরোধ।

প্রকাশিত: 3:48 PM, January 21, 2020

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদে ও বখাটেদের অভিলম্বে গ্রেফতারের দাবিতে সুনামগঞ্জের লীলপুর বাজার এলাকায় সুনামগঞ্জ-সিলেট সড়ক অবরোধ করেছেন সদর উপজেলার জমিরুননূর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও অভিভাকরা।

মঙ্গলবার সকালে ১০ থেকে সাড়ে ১১ টা পর্যন্ত সুনামগঞ্জ-সিলেট সুনামগঞ্জ সড়কের যানবাহন আটকিয়ে এই অবরোধ কর্মসূচী পালন করেন তারা। সদর থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে অবরোধ তুলে নেন বিক্ষোব্ধ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে জমিরুন নূর উচ্চ বিদ্যালয়ে আসা যাওয়ার পথে ছাত্রীদের সাথে অশালীন আচরণ, অশ্লীল অঙ্গভঙ্গিসহ ইভটিজিং করে থাকেন জানিগাঁও এলাকার কিছু উশৃংখল বখাটে। ফলে ছাত্রীদের নিরাপক্তা নিয়ে প্রতিনিয়ত শঙ্কায় থাকেন অভিভাবকরা। এই বখাটেদের বিরুদ্ধে স্থানীয়ভাবে একাধিকবার শালিস হলেও বিহীত ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় উপকার পাচ্ছেন না সাধারণ শিক্ষার্থী ও তাদের পরিবার।

সম্প্রতি বিদ্যালয় থেকে বাড়ি ফেরার পথে লীলপুর খেয়াঘাট এলাকায় সাব্বির, ওয়ানহার ও ইয়াহিয়া নামে তিন বখাটে এক ছাত্রীকে লাঞ্ছিত করে।

এসময় স্থানীয়রা প্রতিবাদ জানালে বখাটেরা পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় শঙ্কিত হয়ে বিদ্যালয়ে ছাত্রীদের পাঠানো বন্ধ করে দেন কয়েক গ্রামের অভিভাবকরা। বিষয়টি বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির দায়িত্বশীল ও স্থানীয় জনপ্রতিনিদের অবহিত করলেও সুরাহা না পাওয়ায় বাধ্য হয়ে রাস্তা অবরোধ করেন ভোক্তভোগী শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও স্থানীয় এলাকাবাসী।

অবরোধ কর্মসূচীতে অন্যান্যদের বক্তব্য রাখেন- জমিরুন নূর উচ্চ বিদ্যালয়ের অভিভাবক মুক্তিযোদ্ধা ফজর আলী, আব্দুল মতিন, ইউপি সদস্য ফরিদ মিয়া, সাবেক ইউপি সদস্য কামরুল ইসলাম, সমাজসেবী আবুল কালাম, সহিবুর রহামান, মোহাম্মদ আলী, আসকর আলী, শাহীন আহমদ, হুমায়ন কবির, আব্দুল্লা মিয়া, মিজান মিয়া, নজরুল ইসলাম, আকমল হোসেন প্রমুখ।

বিক্ষোভকারীরা বখাটেদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতারের আল্টিমেটাম দিয়ে বলেন, অভিলম্বে বখাটেদের গ্রেফতার করে শাস্তি প্রদান করতে হবে। নতুবা কঠোর কর্মসূচী ডাক দেয়া হবে। ছাত্রীদের বিদ্যালয়ে চলাচলে নিরাপত্তা বিধান করে আইনশৃংখলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান তিনি।

বিক্ষোভকারীদের দাবির প্রতি একাত্মতা পোষণ করে সদর থানার তদন্ত অপারেশন বলেন, ইভজারদের বিরুদ্ধে আমরা অনড় অবস্থানে। দ্রুত সময়ের মধ্যে ইভটেজারদের গ্রেফতার করা হবে। ছাত্রীরা যাতে নির্বিঘ্নে বিদ্যালয়ে যেথে পারে সেই জন্যে এই এলাকায় পুলিশের টহল নিয়মিত করা হবে।

এদিকে ইভটিজিং এর বিষয়ে একাধিবার সালিশ করা হলেও বিষয়টি জানেন না স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াদুদ।

তিনি বলেন, এই প্রথম আমি এমন ঘটনা সম্পর্কে জানলাম। আমাকে কেউ জানায়নি। অবরোধ করতে হবে কেনও। এলাকার সচেতন শিক্ষানুরাগি ও সুশীল ব্যক্তিরা যদি উদ্যোগী হই তাহলে ইভটেজারদের প্রতিহত করার সম্ভব।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 86 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ