সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন- ২০১৮

প্রকাশিত: 3:32 PM, July 27, 2018

অনলাইন ডেক্স : সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনের বাকি নেই বেশিদিন। আগামী ২৮ জুলাই মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে নির্বাচনী প্রচারণা। ইতিমধ্যে নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য করে তুলতে নির্বাচন কমিশন সব ধরনের কার্যক্রম প্রায় শেষ করে রেখেছে। বাকি শুধু ৩০ জুলাই এর। ৩০ জুলাই সকাল ৮টা থেকে বিরতিহীন ভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটাররা পছন্দের প্রার্থীদের ভোট দেবেন।

এবারের অনুষ্ঠিতব্য সিলেট সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৭ প্রার্থী। যদিও বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী বদরুজ্জামান সেলিম ‘সংবাদ সম্মেলন’ করে নিজের প্রার্থিতা তুলে নিয়েছেন এবং বন্ধু বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীকে সমর্থন দিয়েছেন। আরিফুল হক ছাড়াও নির্বাচনে মেয়র পদে লড়াই করছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত বদরউদ্দিন আহমদ কামরান, সিপিবি-বাসদ এর মনোনীত আবু জাফর, স্বতন্ত্র প্রার্থী নগর জামায়াতের আমির অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহমুদ জুবায়ের, এহসানুল হক তাহের ও ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের মনোনীত প্রার্থী ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন খাঁন।

আর সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৭টি ওয়ার্ড থেকে প্রার্থী হয়েছেন ১২৭ জন এবং সংরক্ষিত ৯টি ওয়ার্ড থেকে প্রার্থী হয়েছেন ৬৩ জন। ২৭টি ওয়ার্ডের ভোটারদের জন্য নির্বাচন কমিশন ১৩৪ ভোট কেন্দ্র নির্বাচন করেছে।

ইতিমধ্যে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপ-সচিব আবদুল হালিম খান স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) নির্বাচন বিধিমালা ২০১০ এর-বিধি ৭ এর উপ-বিধি (২) অনুসারে চূড়ান্ত ভোটকেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের তথ্যানুসারে জানা যায়- সিলেট সিটিতে ২৭ টি ওয়ার্ডের মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২। নারী ১ লাখ ৫০ হাজার ২৮৮ জন ও ১ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৪ পুরুষ ভোটার রয়েছেন। এসব ভোটাররা ১৩৪টি ভোট কেন্দ্রে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দেবেন। এসব ভোট কেন্দ্রে ৯২৬টি ভোট কক্ষ রয়েছে। এরমধ্যে ৩৪টি অস্থায়ী ভোট কেন্দ্র।

রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের সূত্রমতে- ১নং ওয়ার্ডের ৮হাজার ৮শত ৮১জন ভোটাররা ৪টি কেন্দ্রে ভোট দেবেন। এগুলো হচ্ছে- চৌহাট্টাস্থ আলিয়া মাদরাসা ও দরগা জালালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। আলিয়া মাদরাসার উত্তর ও পূর্বপাশের ভবনের ৩টি কেন্দ্রের দুটিতে পুরুষ ও বাকিটিতে নারীরা ভোট দেবেন। এছাড়াও দরগা জালালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রয়েছে একটি পুরুষ ও মহিলা কেন্দ্র।

২নং ওয়ার্ডের সর্বমোট ভোটার ৬হাজার ৭শত ৫৪ জন রয়েছেন। তাঁরা ৩টি ভোটকেন্দ্রে ভোট দেবেন। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- মদন মোহন কলেজ নতুন ভবনে পুরুষ কেন্দ্র ও পুরাতন ভবনে মহিলা কেন্দ্র। এছাড়াও দাড়িয়াপাড়াস্থ রসময় হাই স্কুলে রয়েছে পুরুষ ও মহিলা কেন্দ্র।

৩নং ওয়ার্ডের ১১হাজার ৯শত ৫জন ভোটারদের জন্য রয়েছে ৫টি ভোট কেন্দ্র। মীরের ময়দানস্থ ব্লু-বার্ড স্কুল এন্ড কলেজে নতুন ও পুরাতন ভবনে পৃথক দুটি কেন্দ্র এবং পুলিশ লাইন উচ্চ বিদ্যালয়ের উত্তর, দক্ষিণ, পূর্ব ও পশ্চিম পাশের ভবন মিলিয়ে ৩টি কেন্দ্র রয়েছে এ ওয়ার্ডের ভোটারদের জন্য রক্ষিত।

৪নং ওয়ার্ডের ৮হাজার ৭শত ৭৮জন ভোটারদের জন্য রয়েছে ৪টি ভোট কেন্দ্র। এগুলো হচ্ছে- হাউজিং এস্টেটস্থ আম্বরখানা গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের ভবন-৩ ও ভবন-৫ এ দুটি কেন্দ্র এবং আম্বরখানা সরকারি কলোনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দক্ষিণ ও পশ্চিম পাশের ভবনে দুটি কেন্দ্র।

এ ওয়ার্ডের দুটি কেন্দ্রের ভোটার ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)-এ ভোট দেবেন। কেন্দ্রগুলো হলো- আম্বরখানা গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ ও আম্বরখানা সরকারি কলোনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ দুটি কেন্দ্রের মধ্যে সর্বমোট ৪হাজার ১শত ৬৯ জন ভোটার ইভিএম পদ্ধতির ভোট দেয়ার সুযোগ পাবেন।

৫নং ওয়ার্ডের ১৫হাজার ১৯জন ভোটারদের জন্য নির্বাচন কমিশন ৭টি ভোট কেন্দ্র চূড়ান্ত করেছে। চূড়ান্ত হওয়া ভোট কেন্দ্রগুলো হলো- খাসদবীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উত্তর ও দক্ষিণ পাশের ভবনে দুটি কেন্দ্র ও ইলেকট্রিক সাপ্লাই রোডস্থ স্কলার্স হোম প্রিপারেটরি স্কুল, খাসদবীরস্থ জামেয়া মাদিনাতুল উলুম দারুস সালামের প্রথম ও দ্বিতীয় তলায় দুটি কেন্দ্র, হাজারীবাগস্থ এভারগ্রিন একাডেমী এবং গ্রিন ফেয়ার কিন্ডার গার্ডেন।

৬নং ওয়ার্ডে ভোটার রয়েছেন ১২হাজার ৪শত ৪১জন। এই ওয়ার্ডের ভোটাররা ৪টি ভোট কেন্দ্রে ভোট দেবেন। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- চৌকিদেখীস্থ বিলাস কমিউনিটি সেন্টার, শাহপরান (রহ.) প্রি-ক্যাডেট একাডেমী এবং আনোয়ার মতিন একাডেমী (দুটি কেন্দ্র)।

৭নং ওয়ার্ডের সর্বমোট ১৬হাজার ৪শত ৮২জন ভোটার রয়েছেন। এসব ভোটাররা ৮টি ভোট কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ভোট কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- সুবিদবাজারস্থ পরীক্ষণ প্রাইমারি ট্রেনিং ইন্সটিটিউট (পিটিআই) সংলগ্ন বিদ্যালয় (নতুন-ভবন), পিটিআই-এর একাডেমিক ভবনে দুটি কেন্দ্র, হলি সিটি পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ, জালালাবাদ আবাসিক এলাকাস্থ আবদুল গফুর ইসলামী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে দুটি কেন্দ্র, পশ্চিম পীরমহল্লাস্থ গৌছ উদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং গৌছুল উলুম জামেয়া ইসলামিয়া।

৮নং ওয়ার্ডে সর্বমোট ভোটার হচ্ছেন ১৮হাজার ১শত ৯০জন। এসব ভোটারদের জন্য ইসি ৮টি ভোট কেন্দ্র চূড়ান্ত করেছে। ভোট কেন্দ্র গুলো হচ্ছে- পাঠানটুলাস্থ শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া কামিল মাদরাসায় ৩টি কেন্দ্র, নোয়াপাড়াস্থ সিটি মডেল স্কুল, ব্রাহ্মণশাসনস্থ বীরেশ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং তারাপুরস্থ মদন মোহন কলেজ কমার্স ফ্যাকাল্টিতে দুটি কেন্দ্র।

৯নং ওয়ার্ডের ৭টি ভোট কেন্দ্র রয়েছে। কেন্দ্র গুলো হলো- পাঠানটুলা দ্বি-পাক্ষিক উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, বাগবাড়িস্থ এতিম স্কুল দুটি কেন্দ্র, বাগবাড়িস্থ বর্ণমালা সিটি একাডেমী, বিদ্যারণ্য স্কুল ও মহিলা কলেজ এবং সুবিদবাজারস্থ আনন্দ নিকেতন। এ ওয়ার্ডের সর্বমোট ভোটার ১৫হাজার ৮শত ৯২ জন।

১০নং ওয়ার্ডের ১৫হাজার ৮শত ৬৮জন ভোটারের জন্য রয়েছে ৬টি ভোট কেন্দ্র। কেন্দ্রগুলো হলো- ঘাসিটুলাস্থ জালালাবাদ স্কুল এন্ড কলেজ, ঘাসিটুলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ডহর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং মঈন উদ্দিন আদর্শ মহিলা কলেজে দুটি কেন্দ্র।

১১নং ওয়ার্ডে ভোট কেন্দ্র আছে ৫টি। এগুলো হচ্ছে- মধুশহীদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, ভাতালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং লামাবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এসব ভোটকেন্দ্রের সর্বমোট ভোটার হচ্ছেন ১৩হাজার ১০জন।

১২নং ওয়ার্ডের ৯হাজার ৮শত ৭৭জন ভোটারদের জন্য ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৪টি। কেন্দ্রগুলো হলো-শেখঘাটস্থ মঈনুন্নেসা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, শেখঘাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং শেখঘাটস্থ সরকারি বাকশ্রবণপ্রতিবন্ধী বিদ্যালয়।

১৩নং ওয়ার্ডের ৯হাজার ৫শত ১৯জন ভোটার রয়েছেন। তাদের জন্য ৩টি ভোট কেন্দ্র চ’ড়ান্ত করেছে নির্বাচন কমিশন। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- জামিয়া ইসলামিয়া মাদানিয়া কাজিরবাজার মাদরাসা, মির্জাজাঙ্গাল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় এবং চাঁদনীঘাটস্থ সারদা স্মৃতিভবন।

১৪নং ওয়ার্ডের ভোটার সংখ্যা ৯ হাজার ১শত ৫৮ জন। তাঁরা ৪টি ভোট কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- জিন্দাবাজারস্থ সরকারি অগ্রগামী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, কালীঘাটস্থ সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং চালিবন্দরস্থ হাকিম বশীরুল হক ছাত্রাবাস।

১৫নং ওয়ার্ডের ১০হাজার ৩শত ৭৯ জন ভোটার রয়েছেন। এসব ভোটারদের জন্য ৪টি ভোট কেন্দ্র আছে। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- বন্দরবাজারস্থ দুর্গা কুমার পাঠশালা, মিরাবাজারস্থ শাহজালাল জামিয়া ইসলামিয়া স্কুল এন্ড কলেজে দুটি কেন্দ্র এবং মিরাবাজারস্থ কিশোরী মোহন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (বালক শাখা)।

১৬নং ওয়ার্ডে ৪টি ভোটকেন্দ্রের ভোটার হচ্ছেন ৯হাজার ৪শত ১৯জন। তাঁরা তাঁতিপাড়াস্থ দ্য এইডেড হাই স্কুল এবং নয়াসড়কস্থ কিশোরী মোহন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩টি কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

১৭নং ওয়ার্ডে ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৬টি। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- কাজীটুলাস্থ কাজী জালাল উদ্দিন বালক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কাজী জালাল উদ্দিন বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, লোহারপাড়াস্থ শাহীন স্কুল এন্ড কলেজ, কাজীটুলাস্থ দ্য রয়েল এমসি একাডেমী এবং আম্বরখানা দরগা গেইট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ ছয় কেন্দ্রের মোট ভোটার হচ্ছেন ১৩হাজার ৭শত ৯৩জন।

১৮নং ওয়ার্ডে আছে ৫টি ভোটকেন্দ্র। এগুলো হচ্ছে- মিরাবাজারস্থ মডেল হাই স্কুল, ঝর্ণারপাড়স্থ কাজী জালাল উদ্দিন বহুমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং রায়নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র। এসব কেন্দ্রে মোট ভোটার হচ্ছেন ১১হাজার ৬শত ১৯জন।

১৯নং ওয়ার্ডের ৪টি ভোট কেন্দ্র হচ্ছে- শাহীঈদগাস্থ শাহমীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, বখতিয়ার বিবি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং দর্জিপাড়াস্থ সার্ক ইন্টারন্যাশনাল কলেজ। এ চার কেন্দ্রের মোট ভোটার হচ্ছে ১১হাজার ৬শত ২৬জন।

২০নং ওয়ার্ডের ৫টি ভোট কেন্দ্র হচ্ছে- এমসি কলেজ, দেবপাড়াস্থ নবীনচন্দ্র সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং সাদিপুরস্থ সৈয়দ হাতিম আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র। এসব কেন্দ্রের মোট ভোটার হচ্ছে ১০হাজার ৫শত ৬৪জন।

২১নং ওয়ার্ডের ৫টি ভোটকেন্দ্র হচ্ছে- সাদিপুরস্থ সৈয়দ হাতিম আলী প্রাথমিক বিদ্যালয়, কালাসীলস্থ চান্দু শাহ জামেয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসা, সোনারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং শিবগঞ্জস্থ স্কলার্স হোম প্রিপারেটরি স্কুল। ১১হাজার ৯শত ৩৩ জন হচ্ছেন এসব কেন্দ্রের মোট ভোটার।

২২নং ওয়ার্ডের ৫টি ভোটকেন্দ্র হচ্ছে- শাহজালাল উপশহর উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, উপশহরস্থ শাহজালাল আদর্শ বিদ্যালয়, শাহজালাল উপশহর একাডেমী এবং উপশহরস্থ বাংলাদেশ ব্যাংক স্কুল। এসব কেন্দ্রের মোট ভোটার হচ্ছেন ১০হাজার ১শত ৯৭জন।

২৩নং ওয়ার্ডের ৩টি ভোটকেন্দ্রের হচ্ছে- মাছিমপুরস্থ আব্দুল হামিদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং মেন্দিবাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ তিন কেন্দ্রের মোট ভোটার হচ্ছেন ৬হাজার ৯শত ৮৭জন।

২৪নং ওয়ার্ডের সর্বমোট ভোটার হচ্ছেন ১২হাজার ৭শত ২২জন। এসব ভোটাররে জন্য ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৪টি। তাঁরা যে চারটি ভোটকেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন সেগুলো হচ্ছে- উমরশাহ তেররতন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, টুলটিকরস্থ গাজী বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং কুশিঘাটস্থ শাহগাজী সৈয়দ বুরহান উদ্দিন (রহ.) মাদরাসা।

২৫নং ওয়ার্ডের ভোটার সংখ্যা ১২হাজার ৬শত ৪৬জন। এসব ভোটাররা ৬টি ভোট কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- কায়েস্থরাইল উচ্চ বিদ্যালয়, মেনিখোলা মৌর বিবি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কায়েস্থরাইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, খোজারখলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র এবং টেকনিক্যাল রোডস্থ সিলেট টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ।

২৬নং ওয়ার্ডের ৬টি ভোটকেন্দ্র রয়েছে। এওয়ার্ডের সর্বমোট ভোটার ১৪হাজার ১শত ৪২জন। তাঁরা ভার্থখোলাস্থ নছিবা খাতুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, কদমতলি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, ঝালোপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং রেলওয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোট কেন্দ্রে ভোট দেবেন।

সিলেট সিটির সর্বশেষ ওয়ার্ড হচ্ছে ২৭নং। এ ওয়ার্ডের সর্বমোট ১১হাজার ৮শত ৪০জন ভোটার রয়েছেন। এসব ভোটার ৫টি ভোট কেন্দ্রে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ভোট কেন্দ্রগুলো হচ্ছে- পাঠানপাড়াস্থ জহির তাহির মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ে দুটি কেন্দ্র, গোটাটিকর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গোটাটিকর দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয় এবং হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

তথ্যসুত্র : সি:প্র:২৪.কম

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 27 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ