সুনামগঞ্জ জেলাকে ভিক্ষুক মুক্ত জেলা হিসেবে ঘোষনা করতে জেলা প্রশাসনের প্রসংশনীয় উদ্যোগ

প্রকাশিত: 10:59 AM, July 21, 2018

অনলাইন ডেক্স :20180721_104929সুনামগজ্ঞ জেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম।
জেলার সকল ভিক্ষুককে পুনর্বাসনের লক্ষ্যে জেলা-উপজেলার সকল কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষকদের কাছ থেকে প্রায় ৪০ লাখ টাকা সংগ্রহ করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
জেলার সকল উপজেলা সমাসসেবা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় থেকে ভিক্ষুকদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা সংগ্রহ করার কাজ শুরু হয়েছে। তালিকা যাচাই-বাছাই করার পর ভিক্ষুকদের স্থানীয়ভাবে পুনর্বাসিত করা হবে।
চলতি জুলাই মাসেই জেলা-উপজেলা পর্যায়ের প্রায় ১০ হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী-শিক্ষকদের এক দিনের বেতন বাবদ আনুমানিক প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা সংগ্রহ করা হবে বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।
সংগ্রহকৃত সকল অর্থ জেলা প্রশাসনের ভিক্ষুকমুক্তকরণ ফান্ডে জমা করা হবে। জেলা প্রশাসনের এই মহতি উদ্যোগের বিষয়টি ইতিমধ্যেই জেলা-উপজেলার সকল দপ্তর প্রধানকে অবহিত করা হয়েছে এবং জেলা পর্যায়ে ১ লাখ ৪১ হাজার টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে।
সুনামগঞ্জ জেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করার উদ্যোগ গ্রহণের বিষয়টি নিয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. নুরুজ্জামান বৃহস্পতিবার রাতে নিজের ফেইসবুকে লিখেছেন,‘মাত্র এ মাসেই জেলা-উপজেলা পর্যায়ের প্রায় ১০ হাজার কর্মকর্তা–কর্মচারী-শিক্ষকদের ১ দিনের বেতন বাবদ আনুমানিক প্রায় ৪০ লক্ষ টাকা জেলা প্রশাসনের ভিক্ষুকমুক্তকরণ ফান্ডে জমা করার উদ্যোগ নিয়েছি। এ টাকা শতভাগ স্বচ্ছতার সাথে ভিক্ষুকদের পুনর্বাসনে ব্যয় করা হবে। ইতিমধ্যেই আমরা সকল দপ্তর প্রধানকে অবহিত করেছি। আমাদের সবার একটু সহানুভূতি এই হতভাগা মানুষগুলোর জীবনকে পালটে দিতে পারে। এক্ষেত্রে আমরা সারা দেশে প্রথম উদ্যোগ গ্রহণের ভুমিকায় থাকতে চাই।’
তবে ভিক্ষুকমুক্তকরণের উদ্যোগ বাস্তবায়ন খুব কঠিন বলে
জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলাম বলেন,‘ ভিক্ষুকরা সমাজেরই অংশ, তাই তাদেরকে পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রাথমিকভাবে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের একদিনের বেতন প্রদান করা হবে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত জেলায় ১লাখ ৪১ হাজার টাকা সংগ্রহ করা হয়েছে। ভিক্ষুকদের তালিকা প্রণয়নের কাজ চলছে। তালিকা তৈরির পর তাদেরকে পুনর্বাসিত করা হবে।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 22 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ