‘ইসরাইলকে ট্যাংক ফেরত দেয়া সিরিয়ার প্রতি অপমান’

প্রকাশিত: 3:07 AM, June 1, 2016

file (10)
অনলাইন ডেস্ক:সিরিয়ার আটক করা একটি ট্যাংক ইহুদিবাদী ইসরাইলকে ফেরত দেয়ার সমালোচনা করেছেন লেবাননের প্রবীণ রাজনীতিক এবং প্রোগ্রেসিভ সোশ্যালিস্ট পার্টির নেতা ওয়ালিদ জুমব্লাত। তিন দশক আগে লেবানন থেকে ইসরাইলের ওই ট্যাংকটি আটক করেছিল সিরিয়া। পরে তা রাশিয়াকে দেয়া হয়। এতো দিন ট্যাংকটি রুশ জাদুঘরে ছিল।

১৯৮২ সালে ইহুদিবাদী ইসরাইল দক্ষিণ লেবাননে আগ্রাসন চালায়। সে সময় সিরিয়ার সামরিক বাহিনী ইসরাইলের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায় এবং ইসরাইল ভয়াবহ বিপর্যয়ের শিকার হয়। ‘সুলতান ইয়াকুব যুদ্ধ’ নামে পরিচিত এ যুদ্ধের সময় ইহুদিবাদী ইসরাইলের অন্তত ৩০ সেনা নিহত হয় এবং আটটি ট্যাংক ফেলে রেখে যায়। সে সময় এসব ট্যাংক আটক করে সিরিয়ার সেনারা।

গতকাল (সোমবার) এক টুইটার বার্তায় ওয়ালিদ জুমব্লাত বলেছেন, “ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর অনুরোধ গ্রহণ করার পর রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তেল আবিবকে একটি ট্যাংক ফেরত দিয়েছেন। সিরিয়া তথ্য বিনিময়ের জন্য এ ট্যাংক দিয়েছিল রাশিয়াকে। এখন সে ট্যাংক ফেরত দেয়া সিরিয়ার জন্য অপমানজনক ঘটনা।”

১৯৮২ সালে ইসরাইলের ট্যাংক আটকের পর তার একটি রাশিয়ার জাদুঘরে পাঠায় সিরিয়ার সরকার। মস্কোর কুবিনকা জাদুঘরে এতদিন ট্যাংকটি প্রদর্শনীর জন্য রাখা হয়েছিল।

ওয়ালিদ জুমব্লাত বলেন, “১৯৮২ সালের যুদ্ধে আমরা ছিলাম সিরিয়ার মিত্র। একটি প্রতীকি অর্থে রাশিয়াকে ট্যাংক দেয়া হয়েছিল। সুলতান ইয়াকুব যুদ্ধ ইতিহাসের মোড় ঘুরিয়ে দিয়েছিল।”

ওই যুদ্ধে ইসরাইলের আরো তিন সেনা নিখোঁজ হয় এবং আজ পর্যন্ত তাদের ভাগ্য সম্পর্কে জানা যায় নি। সে সময় লেবানন অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে জর্জরিত ছিল। ইসরাইলের আগ্রাসনের মুখে সিরিয়ার সরকার লেবাননের পক্ষে যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 23 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ