সুনামগঞ্জে আবাসিক হোটেলে ‘স্বামীর হাতে’ কন্ঠশিল্পী খুন

প্রকাশিত: 1:42 AM, May 14, 2016

সুনামগঞ্জে আবাসিক হোটেলে ‘স্বামীর হাতে’ কন্ঠশিল্পী খুন

ফরিদ মিয়া সুনামগঞ্জঃ সুনামগঞ্জ শহরের আবাসিক হোটেল আল-হেলাল থেকে স্থানীয় কন্ঠশিল্পী চুমকির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে হোটেলের ১০১ নম্বর কক্ষ থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়। হোটেল ও পুলিশ সুত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ১০ মিনিটে শহরের পশ্চিম তেঘরিয়া মহল্লার মৃত ফুল মিয়ার পুত্র মহিন ইসলাম তার স্ত্রী পরিচয়ে চুমকি আক্তার(২০) নামে এক তরুনীকে নিয়ে হোটেলে রাত্রিযাপন করেন। সকালে নিহতের স্বামী মহিন নাস্তা আনার কথা বলে রুমে তালা দিয়ে বেরিয়ে যায়। দীর্ঘক্ষন না আসায় ম্যানেজারের সন্দেহ হলে রোমের কাছে গিয়ে মেয়েটিকে ডাকতে থাকে এবং কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে তালা ভেঙ্গে লাশ উদ্ধার করে। হোটেলের ডায়রীতে ছেলের পেশা হিসেবে উল্লেখ আছে নাট্যকর্মী ও মেয়ের পেশা কন্ঠশিল্পী। হোটেল ম্যানেজার কামরুল হোসেন ও হোটেল বয় কৃষ্ণকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নেয়া হয়েছে। আরও জানা যায়, নিহত চুমকিকে মহিন দ্বিতীয় স্ত্রী হিসেবে ৬/৭ মাস পূর্বে বিয়ে করেন এবং বিভিন্ন স্থানে বাসা ভাড়া নিয়ে অবস্থান করেছিলেন। ওয়েজখালীর তালেব হোসেনের বাড়ীতে ২ মাসের বাসা ভাড়া বকেয়া থাকায় তাদের মধ্যে মনোমালিন্য চলছিল। নিহত চুমকি মোহনপুর ইউনিয়নের নুরুল্লা গ্রামের মৃত হারুন রশিদের কন্যা। পারিবারিক কলহের জের ধরেই তাকে হত্যা করা হতে পারে। হোটেল ম্যানেজার কামরুল ইসলাম জানায়, গত বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ১০ মিনিটে স্বামী স্ত্রী পরিচয়ে ১০১ নম্বর রোমে রাত্রি যাপন করে। সকালে ঘুম থেকে উঠে স্বামী মহিন ইসলাম নাস্তা আনতে বেরিয়ে যায় এবং ঘন্টাখানিক সময়ের মধ্যে ফিরে না আসায় সন্দেহ হয় এবং রোমের কাছে গিয়ে তালাবদ্ধ দেখতে পেয়ে থানায় খবর দেয়া হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে লাশ উদ্ধার করেন। মহিনের মোবাইল ফোন বন্ধ রয়েছে। এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ মডেল থানার ওসি হারুন অর রশিদ চৌধুরী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে বলেন,স্বামী স্ত্রী পরিচয়ে গতকাল রাতে হোটেলে অবস্থান করেন। গলায় ওড়না পেচাঁনোর দাগ দেখা গেছে। লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 40 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ