দারিদ্র্যের কারণে আত্মহত্যা ঠেকাতে কানাডায় জরুরি অবস্থা

প্রকাশিত: 1:36 AM, April 12, 2016

দারিদ্র্যের কারণে আত্মহত্যা ঠেকাতে কানাডায় জরুরি অবস্থা
বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর মধ্যে একটি কানাডা। দেশটির একটি আদিবাসী সম্প্রদায় অন্টরিও প্রদেশের ‘অটোয়াপিস্কাট ফার্স্ট নেশন’। দারিদ্র্যসীমার খুবই নিম্নস্তরে বাস করে ১৪ লাখ জনসংখ্যা অধ্যুষিত এই সম্প্রদায়টির মানুষ। আর এ কারণেই আত্মহত্যার প্রবণতাও বেশি তাদের মাঝে।

কানাডার আদিবাসী এই সম্প্রদায়টির আত্মহত্যা ঠেকাতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে অটোয়াপিস্কাট ফার্স্ট নেশন অঞ্চলে। শনিবার অঞ্চলটিতে আত্মহত্যার চেষ্টা করে ১১ জন মানুষ। এরপরেই প্রদেশটিতে জারি করা হয়েছে জরুরি অবস্থা। এ ঘটনাকে ’হৃদয়বিদারক’ বলে আখ্যায়িত করেছেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডেউ।

চলতি বছরের অঞ্চলটিতে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিল ২৮ জন। গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে এ সংখ্যা ১০০ জন, যার মধ্যে মারা গেছে একজন।

জীবন নিয়ে হতাশা অনেক বেশি কানাডার আদিবাসী সম্প্রদায়ের মধ্যে। অটোয়াপিস্কাট ফার্স্ট নেশন সম্প্রদায়ের প্রধান ব্রুস শিশেস বলেন, শনিবার ১১ জন লোক আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। আর এতে বাধ্য হয়েই জরুরি অবস্থা জারি করেছেন তিনি। ঘটনার পরপরই সঙ্কট মোকাবেলায় রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে একটি ইউনিট পাঠানো হয়েছে আদিবাসী সম্প্রদায়টির কাছে।

কানাডার স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, ওই ইউনিটের সাথে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক দুজন পরামর্শক পাঠানো হয়েছে। স্থানীয় সাংসদ চার্লি অ্যাঙ্গাস বলেন, ‘এটা একটি পদ্ধতিগত সঙ্কট, যা সম্প্রদায়টির ওপর প্রভাব বিস্তার করছে। সরকারের কোনো পর্যায় থেকেই এ পর্যন্ত কোনো কার্যকর সাড়া পাওয়া যায়নি।’

কানাডার পশ্চিমাঞ্চলের রাজ্য মানিটোবার আরো একটি আদিবাসী সম্প্রদায়ও একই ধরনের সাহায্যের জন্য গত মাসে আবেদন করেছে। গত দুই মাসে সেখানে আত্মহত্যা করেছে দুইজন এবং গত দুই সপ্তাহে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে ১৪০ জন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 18 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ