শিক্ষা ক্ষেত্রে আইন না মানলে কঠোর ব্যবস্থা : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত: 8:33 AM, February 25, 2016

শিক্ষা ক্ষেত্রে আইন না মানলে কঠোর ব্যবস্থা : শিক্ষামন্ত্রী

প্রান্ত ডেস্ক:শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, আইন অমান্য করে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় টিকে থাকতে পারবে না। শিক্ষা নিয়ে কেউ বাণিজ্য করুক আমরা তার ঘোর বিরোধী। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আজ বৃস্পতিবার ইউনির্ভাসিটি অব ডেভলপমেন্ট অলটারনেটিভ এর পঞ্চম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, আমরা উচ্চ শিক্ষাকে জাতীয় উন্নয়নের চাবিকাঠি হিসেবে চিহ্নিত করেছি তাই এর গুনগত মান নিয়ন্ত্রণের জন্য অ্যাক্রিডিটেশন কাউন্সিল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। বর্তমানে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং গ্রাজুয়েট সংখ্যা বেশি। এটা যেমন প্রশংসার দাবি রাখে তেমনি আবার উদ্যোক্তারা সরকারের নিয়মনীতি অনুসরণ করেন না, যা কেবল অনৈতিক নয় আইন লঙ্ঘনের সামিল। শিক্ষা ক্ষেত্রে যারা আইন মানবে না তাদের বিষয়ে আমরা কঠোর ব্যবস্থা নিব। শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, প্রাথমিক স্কুলে ৯৯ শতাংশ শিশুকে নাম লেখাতে পেরেছি। যদিও ধরে রাখা কষ্টকর। উচ্চ শিক্ষার মান উন্নয়নে উচ্চ শিক্ষা কাউন্সিল আইন তৈরির কাজ প্রায় চূড়ান্ত করা হয়েছে। স্বাগত বক্তব্যে এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেন, কর্মক্ষেত্রে সাহস এবং আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করতে পারলে সাফল্য তোমাদের আসবেই। সংকটে অচঞ্চল থাকতে পারলে সৃজনশীলতা অনায়াসে তোমাদের করায়ত্ব হবে। দক্ষতার সঙ্গে সততার সম্মিলন যে কোনো প্রতিযোগিতায় সফলভাবে উত্তীর্ণ হওয়ার মূলমন্ত্র। অনুষ্ঠানে সমাবর্তন বক্তা ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এ কে আজাদ চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইউডার উপাচার্য অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ। ইউডার বোর্ড অব ট্রাস্ট্রির প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক মুজিব খান। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বোর্ড অব ট্রাস্ট্রির সদস্যরা, সিন্ডিকেট ও একাডেমিক কমিটির সদস্যরা, বিভিন্ন অনুষদের ডীন, শিক্ষক, অভিভাবক এবং সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উচ্চ পর্যায়ের ব্যক্তিরা। সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতকোত্তর ও স্নাতক (সম্মান) মিলিয়ে মোট এক হাজার ৩৬০ ছাত্র-ছাত্রীকে ডিগ্রী প্রদান করা হয়। ভালো ফল লাভ করায় সমাবর্তনে চ্যান্সেলর অ্যাওয়ার্ড স্বর্ণপদক পান আটজন শিক্ষার্থী। আর অ্যাওয়ার্ড অব মেরিট ক্রেস্ট পান ১৭ শিক্ষার্থী। সমাবর্তন শেষে ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগ স্মরণে এবং ভাষার মাসের মর্যাদা রক্ষায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 8 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ