বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা দেবে ভারত

প্রকাশিত: 7:25 AM, February 24, 2016

বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা দেবে ভারত

094846Mir-Kasem-Ali-(3)প্রান্ত ডেস্ক:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার কার্যালয়ে সফররত ভারতের বিমানবাহিনী প্রধান মার্শাল অরূপ রাহা এবং তার স্ত্রী লিলি রাহা সৌজন্য সাক্ষাত্ করেছেন।
গতকাল মঙ্গলবার সাক্ষাত্কালে তাদের মধ্যে অর্থনীতি, যোগাযোগ এবং দুই দেশের বিমানবাহিনীসহ বিভিন্ন পারস্পরিক স্বার্থ ও সহযোগিতার বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। সাক্ষাত্কালে ভারতীয় বিমানবাহিনী প্রধান বলেন, ১৯৭১ সালে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য ভারতীয় বীর যোদ্ধাদের বাংলাদেশ যে অভ্যর্থনা ও সম্মাননা জানিয়েছে এতে তারা অত্যন্ত খুশি। বাংলাদেশি যোদ্ধাদেরও ভারত সম্মাননা জানাবে। বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফিং করেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রতিবেশী দেশগুলোর উন্নয়নের জন্য দেশগুলোর মধ্যে আরো অর্থনৈতিক কার্যক্রম জোরদারে বিবিআইএন উদ্যোগ ও বিসিআইএম অর্থনৈতিক করিডোরের মতো গৃহীত আঞ্চলিক সহযোগিতা প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরেন। তিনি ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধকালে ভারতীয় মিত্র বাহিনীর সহযোগিতা ও ত্যাগের কথা স্মরণ করেন। বিশেষ করে যুদ্ধের শেষ পর্যায়ে ঢাকা বিমান যুদ্ধের কথা উল্লেখ করেন। শেখ হাসিনা পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নৃশংস হত্যাকাণ্ডের পর ভারতে তার ৬ বছর প্রবাস জীবনের কথা স্মরণ করেন।
শেখ হাসিনা বলেন, বিবিআইএন উদ্যোগ এবং বিসিআইএম করিডোরের মতো উপ-আঞ্চলিক সহযোগিতা একদা কার্যকর ভূমিকা রাখবে, দেশগুলোর মধ্যে আরো অর্থনৈতিক কার্যক্রম জোরদারের একটি নতুন সম্ভাবনা তৈরি হবে। প্রধানমন্ত্রী সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আঞ্চলিক বিমানবন্দরে পরিণত করতে তার সরকারের উদ্যোগের কথা ভারতীয় বিমানবাহিনী প্রধানকে অবহিত করে বলেন, এই বিমানবন্দর থেকে প্রতিবেশী দেশগুলো কার্গো ফ্লাইট পরিচালনা করতে পারবে।
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে শুভেচ্ছা জানিয়ে শেখ হাসিনা পারস্পরিক সহযোগিতা জোরদারে প্রতিবেশী দেশগুলোর নেতাদের অফিসিয়াল সফরের পাশাপাশি আরো ব্যক্তিগত সফরের প্রতি গুরুত্বারোপ করেন। তিনি ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে সীমান্তহাট বৃদ্ধির ওপরও জোর দেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনার পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে বলেন, উত্তর ভারতের রাজ্যগুলোর লন্ডন ও ইউরোপমুখী নাগরিকরা ট্রানজিটের জন্য এই বিমানবন্দর ব্যবহার করতে পারে।
বাংলাদেশ সফরকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে উল্লেখ করে ভারতের বিমানবাহিনী প্রধান বলেন, দুই দেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, দুই দেশের মধ্যে সামরিক সহযোগিতা কয়েক বছরে বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি বলেন, সামরিক প্রশিক্ষণ পর্যায় অনেক সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বাংলাদেশ ও ভারত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা খাতে একত্রে কাজ করতে পারে। ভারতের বিমানবাহিনী প্রধান তাদের কাছে থাকা যুদ্ধ বিমান লিবারেশন ওয়ার মিউজিয়ামে রাখার প্রস্তাব দেন।
এ সময় অন্যান্যের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ এবং ঢাকায় ভারতের হাই কমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা উপস্থিত ছিলেন।- ইউরো বিডিনিউজ

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 4 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ