এশিয়া কাপের চ্যাম্পিয়ন ভারত

প্রকাশিত: 1:33 AM, March 7, 2016

এশিয়া কাপের  চ্যাম্পিয়ন ভারত

আট উইকেটের সহজ জয় দিয়ে এশিয়া কাপের শিরোপা আরও একবার ঘরে তুললো ভারত। বাংলাদেশের ১৫ ওভারে করা ১২০ রান তারা সাত বল আর আট উইকেট হাতে রেখেই টপকে যায় তারা। ধাওয়ানের বিদায়ের পর মাঠে নেমে মহেন্দ্র সিং ধোনি ভারতবাসীর সব সংশয় মিলিয়ে দেন। তিনি মাত্র ৫ বলে ১৪ রান নিয়ে ১৪তম ওভারেই জয় নিশ্চিত করেন। কোহলি ১৮ বলে ৪১ রান করে অপরাজিত থাকেন। তাসকিন ছাড়া বাংলাদেশের বোলাররা তেমন সমীহ আদায় করতে পারেনি। দলকে প্রায় জয়ের কাছে পৌছে দিয়ে বিদায় নেন ধাওয়ান। তাসকিনের বলে অসাধারণ ক্যাচ নেন সৌম্য সরকার। ৪৪ বলে ৬০ রান করেন ধাওয়ান। ১৮ টি-২০ ম্যাচে এটি তার দ্বিতীয় ফিফটি। দ্বিতীয় উইকেটে ৯৪ রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশের জয়ের সম্ভাবনা ক্ষীণ করে দেন শিখর ধাওয়ান ও বিরাট কোহলি। ৭ ওভার শেষে ভারতের সংগ্রহ ৫৫/১। ধাওয়ান ৩০ ও কোহলি ২৪ রানে ব্যাট করছিলেন। রনি ও সাকিব তাদের প্রথম ওভারে ১৪ ও ১৫ রান দিয়ে ভারতের রানের চাকা বাড়িয়ে দেন।
বোলিংয়ে দারুণ শুরু করেছিল বাংলাদেশ। প্রথম ওভারে তাসকিন মাত্র ৫ রান দিয়ে ভারতকে চাপে রাখেন। এরপর আল আমিন তার প্রথম ওভারেই ফিরিয়ে দেন রোহিত শর্মাকে। ৫ বলে এক রান করে ফেরেন তিনি। বাংলাদেশ ফিল্ডিংও করছে দারুণ। ২ ওভারে তাদের রান ৬।

Indian cricketer  Virat Kohli (R) reacts next to the captain Mahendra Singh Dhoni (L) after winning the match during the Asia Cup T20 cricket tournament final match between Bangladesh and India at the Sher-e-Bangla National Cricket Stadium in Dhaka on March 6, 2016.  / AFP / MUNIR UZ ZAMAN        (Photo credit should read MUNIR UZ ZAMAN/AFP/Getty Images)
বাংলাদেশ ইনিংস
ভারতকে ১২১ রানের টার্গেট দিলো বাংলাদেশ। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ১৩ বলে ৩৩ রানের মারকুটে ব্যাটিংয়ে ১২০/৬ সংগ্রহ নিয়ে ইনিংস শেষ করে টাইগাররা। বড় ইনিংস খেলতে পারলেন না তামিম-সাকিবও। এতে ১০ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬৮/৩-এ। এর আগে আশীষ নেহরার ওভারে দুটি বাউন্ডারি হাঁকান সৌম্য সরকার। তবে ওভারের শেষ বলে কট আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন বাংলাদেশের এ ড্যাশিং বাঁ-হাতি ওপেনার। ৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ২৭/১। রবিচন্দ্রন অশ্বিনের অফ স্পিনে ইনিংস শুরু করলো ভারত। ওপেনার সৌম্য সরকারের এক বাউন্ডারিতে প্রথম ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৫/০। ফাইনালে টস জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠান ভারত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি। খেলা হচ্ছে ১৫ ওভারে । দু’দলের প্রত্যেক বোলার সর্বোচ্চ ৩ ওভার বোলিং করতে পারবেন। ইনিংস বিরতি থাকবে ১০ মিনিটের।
খেলা শুরুর আগে
বাংলাদেশ একাদশে জায়গা নিয়েছেন নাসির হোসেন ও তরুণ পেসার আবু হায়দার রনি। এতে একাদশ থেকে বাদ পড়েছেন মোহাম্মদ মিঠুন ও আরাফাত সানি। রাত ৮টা ১০ মিনিটে মাঠের কভার সরিয়ে নেয়া হয়। আর রাত পৌনে ৯টায় মাঠ পরিদর্শনে নামেন আম্পায়াররা। রোববার সন্ধ্যায় মিরপুরে কালবৈশাখীর সঙ্গে ছিলো মুষলধারে বৃষ্টি। এতে বিদ্যুৎ চলে যাওয়ায় নিভে গিয়েছিল স্টেডিয়ামের ফ্লাড লাইটও। তবে সন্ধ্যা সাতটার সময় বৃষ্টি কিছুটা কমে আসে। জ্বলে ওঠে একটি ফ্লাড লাইটের টাওয়ারও। খেলা দেখার আশায় বৃষ্টিভেজা গ্যালারিতেই আবার বসতে শুরু করেন দর্শকেরা। তবে মাঠের ৩০ গজের বাইরের অনেকটা অংশ তখনো আচ্ছাদনে ঢাকা। এ অবস্থায় এশিয়া কাপের বাংলাদেশ-ভারত ফাইনালের ভবিষ্যৎ কিছুটা অনিশ্চিতই হয়ে পড়ে। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় খেলা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তা হচ্ছে না। বৃষ্টি পুরোপুরি থামলে আম্পায়াররা মাঠ পর্যবেক্ষণ করে খেলা শুরুর নতুন সময় জানাবেন। প্লেয়িং কন্ডিশন অনুযায়ী শেষ পর্যন্ত ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে খেলা হলেও হতে হবে অন্তত ৫ ওভারের ম্যাচ। সে ক্ষেত্রে খেলা শুরুর জন্য সর্বোচ্চ অপেক্ষা করা হবে রাত ১০টা ৪৬ মিনিট পর্যন্ত। ১০ মিনিটের ইনিংস বিরতিসহ খেলা শেষ হওয়ার নির্ধারিত সময় রাত ১০টা ৪০ মিনিট। জরুরি পরিস্থিতিতে আম্পায়াররা সেটা সর্বোচ্চ এক ঘণ্টা বাড়াতে পারবেন। সে হিসাবে খেলা শেষ করতে হবে রাত ১১টা ৪০ মিনিটের মধ্যে। আর যদি বৃষ্টির কারণে শেষ পর্যন্ত একটি বলও না গড়ায়, ম্যাচ হয়ে যাবে পরিত্যক্ত। দুই ফাইনালিস্ট বাংলাদেশ-ভারতকে তখন যুগ্ম চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হবে। তাতে এশিয়া কাপের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি হয়তো হবে, কিন্তু ফাইনালের রোমাঞ্চ দেখা থেকে বঞ্চিত হবে দর্শক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 21 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ