সিলেটের আদালতে ডিজিটালাইজেশনের ছোঁয়া লাগছে

প্রকাশিত: 2:51 AM, February 29, 2016

সিলেটের আদালতে ডিজিটালাইজেশনের ছোঁয়া লাগছে

স্টাফ রিপোর্টার : সিলেটের ২০টি আদালতে মার্চ মাস থেকেই ডিজিটাল পদ্ধতিতে সাক্ষীর সাক্ষ্য লিপিবদ্ধ করার কাজ শুরু হচ্ছে। কম্পিউটারের মাধ্যমে সরাসরি সাক্ষীর সাক্ষ্য লিপিবদ্ধ করা হবে। এরপর থেকে সাক্ষীর সাক্ষ্য হাতে লিখে লিপিবদ্ধ করা হবে না। মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে আধুনিক পদ্ধতিতে সাক্ষীর সাক্ষ্য লিপিবদ্ধ করা হয়। ট্রাইব্যুনালে বিচারকদের সামনে ৩টি, প্রসিকিউটর ও আসামিপক্ষের আইনজীবীর সামনে ২টি এবং স্টোনোগ্রাফারের সামনে থাকে মূল কম্পিউটার। সাক্ষী যখন সাক্ষ্য প্রদান করেন, তখন তাৎক্ষণিকভাবেই তা কম্পিউটারে লিপিবদ্ধ করা হয়। এক্ষেত্রে সাক্ষীর জবানবন্দির কোনো অংশ ভুলভাবে লিপিবদ্ধ হলে বিচারক তাৎক্ষণিকভাবেই তা সংশোধনের নির্দেশ দেন। এই আধুনিক পদ্ধতির ছোঁয়া এবার সিলেটের আদালতেও লাগতে যাচ্ছে। সিলেট মহানগর দায়রা জজ, জেলা দায়রা জজ, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ, চিফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ও চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত মিলিয়ে ২০টি কোর্টে কম্পিউটারের সাহায্যে সাক্ষীর সাক্ষ্য লিপিবদ্ধ করা হবে। জানা যায়, সাক্ষ্যগ্রহণ কর্মকান্ডে ডিজিটালাইজেশনের জন্য ইতোমধ্যেই সিলেটের আদালতগুলোতে সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। প্রায় অর্ধ কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রক্রিয়ায় অর্থায়ন করছে জাতিসংঘ উন্নয়ন প্রকল্প (ইউএনডিপি)। জুডিশিয়াল স্ট্রেনথেনিং প্রজেক্টের (জাস্ট) আওতায় এ প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করছে সুপ্রিম কোর্ট। সূত্র জানায়, প্রক্রিয়া বাস্তবায়ন শুরু হলে সিলেটের আদালতগুলোতে বিচারক, পাবলিক প্রসিকিউটর, বাদী-বিবাদী পক্ষের আইনজীবীদের সামনে কম্পিউটার থাকবে। আদালতে স্টোনোগ্রাফার কম্পিউটারে সাক্ষীর জবানবন্দি এবং আইনজীবীদের জেরা লিপিবদ্ধ করার সাথে সাথে সংশ্লিষ্টরা নিজ নিজ কম্পিউটারে তা দেখতে পাবেন। এক্ষেত্রে কোনো অসঙ্গতি থাকতে বিচারক তা সংশোধনের নির্দেশ দেবেন। এছাড়াও সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে কম্পিউটারে কম্পোজকৃত কপি আদালত সংশ্লিষ্টদের স্বাক্ষর সহকারে মামলার বাদী-বিবাদী পক্ষকে সরবরাহ করা হবে। সূত্র আরো জানায়, আগামী ২ মার্চ সিলেটের আদালতে এ আধুনিকতার ছোঁয়া কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ও প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা। এ ব্যাপারে সিলেট জেলা জজ কোর্টের অ্যাডিশনাল পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট শামসুল ইসলাম বলেন, সিলেটের আদালতে ডিজিটালের ছোঁয়া লাগছে। এজন্য সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে। আগামী ২ মার্চ এ প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন অর্থমন্ত্রী ও প্রধান বিচারপতি।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 25 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ