বিশ্ব বেহায়াপনা দিবস বন্ধ করুন: সরকারকে শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম

প্রকাশিত: 1:03 PM, February 14, 2016

প্রান্ত ডেস্ক:বিশ্ব ভালবাসা দিবসকে বিশ্ব বেহায়াপনা দিবস আখ্যায়িত করে তা অবিলম্বে বন্ধ করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দেশের শীর্ষ ওলামায়ে কেরাম।
রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তারা এ আহ্বান জানান। একই সঙ্গে ভালবাসা দিবসের নামে উচ্ছৃঙ্খলা ও উলঙ্গপনার লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তারা।
বিবৃতিতে ওলামায়ে কেরাম বলেন, আজ ১৪ ফেব্রুয়ারি রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বড় বড় শহর ও পাঁচ তারকা হোটেলগুলোতে উলঙ্গপনা, বেহায়াপনা ও অশ্লীলতার জোয়ার বইয়ে দেয়া হয়েছে। ১৯৯৩ সালে জৈনক ব্যক্তি ঠধষবহঃরহব উধু-এর আড়ালে এদেশে উলঙ্গপনা আমদানি করে গোটা সমাজ ব্যবস্থা, সামাজিক শৃংখলা, পর্দা-পুশিদা, নিরাপত্তা, স্থিতিশীলতা ধ্বংস করে দিচ্ছে। সরল-সোজা, সাদামাটা, যুবক যুবতীরা দিন দিন উচ্ছৃংখল জীবন যাপনে জড়িয়ে পড়ছে। অবাধ মেলামেশা ও চলাফেরার আড়ালে মাদকাসক্ত, নেশাগ্রস্ত ও দুর্নীতিগ্রস্ত হয়ে পড়ছে ঐসব উচ্ছৃঙ্খখল যুবক-যুবতীরা। ৯৫ ভাগ মুসলমানের এদেশে তা কোনোভাবেই চলতে দেয়া যায় না।
তারা বলেন, ২৬৯ খ্রিস্টাব্দে ইতালির খ্রিস্টান পাদ্রী সেন্ট ভ্যালেন্টাইনকে অপকর্মের দায়ে রোম সম্রাট প্রাণ দন্ড দেন। আর সেটিকে স্মরণ রাখতেই খ্রিস্টান জগতে উক্ত ১৪ ফেব্রুয়ারিকে তারা ভ্যালেন্টাইন ডে হিসেবে পালন করে থাকে। ইদানিং ভালোবাসা দিবসকে কেন্দ্র করে যেভাবে দেশ উম্মাতাল হয়ে উঠেছে, তা কোন মুসলমান বরদাশত করতে পারেনা। ইহা আমাদের ঈমান, আক্বীদা, নৈতিকতা ও মৌলিক মানবীয় গুণের পরিপন্থী। আমরা সরকার ও সংশ্লিষ্ট সকল মহলের কাছে অনুরোধ করব ঈমান, ইসলাম, দেশ ও নৈতিকতার স্বার্থে এ ”বিশ্ব বেহায়া দিবস” বন্ধ করুন। সর্বস্তরের দ্বীনদার ঈমানদার ও ধর্ম, দল- মত নির্বিশেষে সকল শ্রেনির অভিভাবকদেরকে অনুরোধ করব আপনার বিপদগামী তরুণ-তরুণী ও বুড়ো-বুড়িদের লাগাম টেনে ধরুন। অন্যথায় তারা দেশ, জাতি ধ্বংস ও আপনার সংসারে সর্বনাশ ডেকে আনবে।
বিবৃতিদাতারা হলেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সভাপতি শাইখ আবদুল মোমিন, শীর্ষ আলেমেদ্বীন রাবেতা আলম আল-ইসলামীর স্থায়ী সদস্য ও সম্মিলিত উলামা মাশায়েখ পরিষদের সভাপতি মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, মাওঃ মোহাম্মাদ ইসহাক, ইসলামী ঐক্যজোটের আমির মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী, খেলাফত আন্দোলনের প্রধান আমিরে শরীয়ত হাফেজ মাওলানা আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জী হজুর, মাওলানা জাফরুল্লাহ খান, মাওলানা মহিউদ্দীন রব্বানী, ড. মাওলানা খলিলুর রহমান মাদানী, শাহতলীর পীর মাওঃ আবুল বাসার, ফরায়েজী আন্দোলনের আমির মাওলানা আব্দুল্ল¬াহ মোঃ হাসান, ইসলামী কানুন বাস্তবায়ন পরিষদের আমির মাওলানা আবু তাহের জিহাদী, মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী ও হক্কানী পীর মাশায়েখ পরিষদের মহাসচিব মাওঃ শাহ আরিফ বিল্লাহ সিদ্দীকি প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 5 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ