শিল্পী কাঙালিনী সুফিয়ার দুঃসহ জীবন-যাপন

প্রকাশিত: 6:30 AM, February 11, 2016

শিল্পী কাঙালিনী সুফিয়ার দুঃসহ জীবন-যাপন

109524_untitled_111282‘বুড়ি হইলাম তোর কারণে’ কাঙালিনী সুফিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় গান। তার কণ্ঠ সব সময়ই ছিল প্রাণ-প্রাচুর্য্যে ভরা।
এই গানের মতো করেই যেন বুড়িয়ে গেছেন সুফিয়া। চেহারা দেখে তাকে চিনতে এখন বেশ কষ্ট হয়। যারা অনেকদিন টিভি পর্দায় শিল্পীকে দেখেন না রাস্তায় হঠাৎ দেখলে তাকে চিনতে পারবেন কি-না সন্দেহ। অভাব অনটনে দুঃসহ জীবন-যাপন করছেন তিনি।
রোগে-দারিদ্রে বয়সের তুলনায় অনেকখানি বুড়ি হয়ে গেছেন কাঙালিনী সুফিয়া। অভাব অনটনে সংসার চালাচ্ছেন জনপ্রিয় এই কণ্ঠশিল্পী।
কাঙালিনী সুফিয়া অন্তরে গানকে কতখানি ধরেন তা বললেন শিল্পীর মেয়ে পুষ্প’। তার গান শুনতে অনুষ্ঠানে সবসময়ই ভিড় করেন দর্শকরা।
পুষ্প জানান, গত কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ কাঙালিনী সুফিয়া। জীবিকার তাগিদেই অসুস্থ অবস্থায়ই বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান গাইতে যান তিনি। অসুস্থ শরীর তাকে ঘরে আটকে রাখতে পারেনা। এই হচ্ছেন কাঙালিনী সুফিয়া। অথচ কিছুদিন ধরে রোগের সঙ্গে প্রাণপণ লড়তে লড়তে স্তব্ধ হয়ে যেতে বসেছে তার কণ্ঠ।
শিল্পীর মেয়ে আরো জানান, বছর কয়েক আগে এ্যাকসিডেন্ট করেছিলেন সুফিয়া। সেই সময় তাৎক্ষণিক চিকিৎসা হলেও এখনো পুরোপুরি সেরে উঠেননি তিনি। কিছুদিন পরপরই অসুস্থ হয়ে যান। স্থানীয় চিকিৎসকের ওষুধপত্র খেলেও পুরোপুরি সুস্থ হননি তিনি। এখনো তার চিকিৎসা করাতে হয়।
অনেক দিন ধরেই অসুস্থ শিল্পী। তাকে দেখার কেউ নেই। সাভারের জামসিং এলাকায় তিন শতাংশ জমির উপর একটি টিনসেড ঘরে শিল্পী ও তার মেয়ে আর নাতনী থাকেন। শিল্পীর স্বামী কুষ্ঠিয়ায় থাকলেও তার খোঁজ-খবর তেমন নেন না। শিল্পী গান গেয়ে যা কামান তাতে কোনো রকমে তাদের দিন চলে। এ অবস্থায় জনগণ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে না দিলে শিল্পীর পক্ষে বেঁচে থাকা কঠিন।
এ সময় শিল্পী বলেন, আমি জনগণের জন্যই গান গাই। আমি যেন আবার গান গাইতে পারি এজন্য জনগণের সাহায্য আমার খুবই দরকার।’
এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশাপাশি সমাজের সামর্থ্যবান ব্যক্তিদের সাহায্যের হাত বাড়ানোর জন্য আহ্বান জানান কাঙালিনী সুফিয়া।
উল্লেখ্য, কাঙালিনী সুফিয়া বাংলাদেশের জনপ্রিয় কয়েকটি ছায়াছবিসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গান গেয়ে দর্শকদের মন জয় করে নেন। জনপ্রিয় এই শিল্পীর জন্মস্থান রাজবাড়ি জেলার রামদিয়া গ্রামে। তার বয়স এখন ৭৫।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 15 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ