‘বাংলাদেশে পোশাক কারখানার নিরাপত্তা ব্যবস্থা উন্নয়নের পরিকল্পনা পিছিয়েছে’

প্রকাশিত: 8:33 AM, January 29, 2016

‘বাংলাদেশে পোশাক কারখানার নিরাপত্তা ব্যবস্থা উন্নয়নের পরিকল্পনা পিছিয়েছে’

1452232811প্রান্ত ডেস্ক:রানা প্লাজা ট্রাজিডির ২ বছরেরও বেশি সময় পার হলেও, বাংলাদেশে বিশ্বখ্যাত পোশাক প্রতিষ্ঠান এইচঅ্যান্ডএম’র অর্ধেকেরও বেশি শীর্ষ যোগানদাতা কারখানায় মৌলিক অগ্নি-নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। এইচঅ্যান্ডঅ্যাম’র ‘গোল্ড’ ও ‘প্লাটিনাম’ গ্রেডের শীর্ষ কারখানাগুলোর এক-তৃতীয়াংশেরও বেশিতে এখনও সøাইডিং দরজা ও কলাপ্সিবল গেট সরানো হয়নি। ফলে দুর্ঘটনায় পড়লে শ্রমিকদের পালানোর পথ আটকে যাওয়ার ঝুঁকি থেকে গেছে।
ক্লিন ক্লথস ক্যাম্পেইন সহ শ্রমিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা একাধিক সংগঠনের একটি প্রতিবেদন উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে দ্য গার্ডিয়ান।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে ওই কারখানাগুলোর ১৩ শতাংশে দরজায় তালা সরানোর মতো মৌলিক পদক্ষেপ নিতে ব্যর্থ হয়েছে। এতে আগুণ ধরলে শ্রমিকদের পালাবার পথ বন্ধ হয়ে যেতে পারে।
২০১৩ সালের এপ্রিলে রানা প্লাজা ট্রাজিডির পর বাংলাদেশে হাজার হাজার গার্মেন্ট কারখানা ভবনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা মূল্যায়ণ ও উন্নত করতে তহবিল যোগাতে দুইটি আন্তর্জাতিক জোট গঠিত হয়। বেশিরভাগ ইউরোপিয়ান পোশাক প্রতিষ্ঠান অ্যাকর্ড অন ফায়ার অ্যান্ড বিল্ডিং সেফটি ইন বাংলাদেশ নামে একটি সংগঠন দাঁড় করায়। এতে এইচঅ্যান্ডঅ্যাম, মার্ক্স অ্যান্ড পেন্সার ও প্রাইমার্কের মতো প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এ জোটের প্রতিষ্ঠানগুলোর পোশাক বাংলাদেশে ১৬০০টিরও বেশি কারখানায় তৈরি হয়।
কারখানাগুলোতে গঠনগত, বৈদ্যুতিক ও অগ্নি-নিরাপত্তা ব্যবস্থায় উন্নতি আনতে জোটের পরিদর্শকরা পরিকল্পনা তৈরি করেন। কিন্তু প্রায় আড়াই বছর পর, ৯০ শতাংশ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন পিছিয়ে গেছে। ডিসেম্বর নাগাদ সম্পন্ন হয়েছে মাত্র ২টি পরিকল্পনা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 12 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ