আমলাতন্ত্র বাংলাদেশের অর্থনীতির বড় দুর্বলতা : বিশ্বব্যাংক

প্রকাশিত: 11:35 AM, December 16, 2015

আমলাতন্ত্র বাংলাদেশের অর্থনীতির বড় দুর্বলতা : বিশ্বব্যাংক

pic_108118প্রান্ত ডেস্ক:আমলাতান্ত্রিক জটিলতা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির একটি বড় বাধা। এর কারণে ব্যবসায় ব্যয় বাড়ে। এতে কোম্পানিগুলোর প্রতিযোগিতার গতি কমে যায়।
গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশে সফররত বিশ্বব্যাংকের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ও প্রধান অর্থনীতিবিদ কৌশিক বসু এ কথা বলেন।
চারদিনের সফরের শেষদিন গতকাল বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন কৌশিক বসু। এ সময় তিনি আরো বলেন, আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে বাংলাদেশের ব্যবসাবাণিজ্য ব্যাহত হচ্ছে।
এ ধরনের সমস্যা না থাকায় সিঙ্গাপুর ও দক্ষিণ কোরিয়া দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে।
প্রতিবছর আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে ব্যবসায়ীদের ১০০ কোটি ডলার খরচ করতে হয় বলে বাংলাদেশের এক ব্যবসায়ী নেতা রয়টার্সকে জানিয়েছেন।
জটিল আইনি কাঠামোর কারণে একটি ব্যবসা শুরু করতে হলে এক ডজন সরকারি দপ্তর ঘুরতে হয় বলে জানান আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স ইন বাংলাদেশের সাবেক সভাপতি এরশাদ আহমেদ।
তিনি বলেন, ব্যবসা শুরু করতে হলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবি আর), বন্দর কর্তৃপক্ষ, শ্রম মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল), বিদ্যুৎ ও জ্বালানি কোম্পানিসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে ধরণা দিতে হয়।
তবে বিশ্বব্যাংকেও আমলাতান্ত্রিক জটিলতা থাকার কথা স্বীকার করেছেন কৌশিক বসু ও বাংলাদেশে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্টিন রমা।
রয়টার্সকে রমা বলেন, ‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতা যত সম্ভব ও যত দ্রুত সম্ভব আমরা কমিয়ে আনার চেষ্টা করছি।’
অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির গতি বাড়াতে হলে বাংলাদেশের অবকাঠামো খাতে বিশেষ করে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের চেয়ে বেশি বিনিয়োগ করতে হবে বলে মনে করেন কৌশিক বসু ও মার্টিন রমা।
কৌশিক বসু বলেন, বাংলাদেশে কর আদায় আরো বাড়াতে হবে। যা আদায় হয় তার হার নেপালের চেয়েও কম বলে জানান তিনি।
বর্তমানে দেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৯ দশমিক ৬ শতাংশ রাজস্ব আহরণ হয়। তবে নেপালে তা ১২ শতাংশ। আর ইউরোপের দরিদ্র দেশ বুলগেরিয়ায় জিডিপির ১২ শতাংশ রাজস্ব আদায় হয়।
গতকালের সংবাদ সম্মেলনে বিশ্বব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতের অগ্রগতির প্রশংসা করেন। বিশেষ করে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ, রপ্তানি প্রবৃদ্ধি, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, রেমিটেন্স-প্রবাহ, তৈরি পোশাক খাত, বিনিয়োগ প্রবৃদ্ধি ও দারিদ্র্যের হার কমার বিষয়ে তিনি প্রশংসা করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 8 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ