চট্টগ্রামের অনেক ইতিহাস শুনেছি মায়ের কাছে: দেবশ্রী

প্রকাশিত: 9:21 AM, November 8, 2015

দেবশ্রী রায় একজন বিখ্যাত ভারতীয় বাঙালি অভিনেত্রী । ১৯৬৫ সালে ৮ আগস্টে কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি তিনশর বেশি সিনেমায় অভিনয় করেছেন,পেয়েছেন ৪০টিরও বেশি পুরস্কার। তিনি তামিল ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে ‘চিন্তামণি’ নামে অভিনয় করতেন। দেবশ্রী রায় এর জন্ম, বেড়ে উঠা সব কলকাতায়। তার পিতার নাম বীরেন্দ্র কিশর রায় এবং মায়ের নাম আরতি রায়। মায়ের বাড়ি বাংলাদেশে ইশ্বরদীতে।
১৯৬৯ সানে তিনি প্রথম ‘বালক গদাধর’ নামে একটি চলচ্চিত্রে শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয় করেন, যার পরিচালক ছিলেন হরিময় সেন। তিনি কলকাতার এ পি জে ,পার্ক স্ট্রীট শাখার স্কুলের ছাত্রী ছিলেন, যদিও নাচের প্রতি অত্যধিক ঝোঁক থাকার কারণে বেশিদূর এগোতে পারেন নি। তার ডাক নাম চুমকি। দেবশ্রী রায় একজন খ্যাতিমান ওড়িশি নৃত্য শিল্পী। তিনি প্রথমে তার মা এবং বড় বোন পূর্ণিমা রায় এর কাছ থেকে নাচ শিখেন। পরে বন্দনা সেন এবং কেলুচরণ মহাপাত্রের কাছ থেকে তালিম নেন। খুব কম বয়স থেকে তিনি মঞ্চে নৃত্য পরিবেশনের মাধ্যমে পরিচিতি লাভ করেন। তার ‌’নটরাজ’ নামে নিজস্ব একটি নাচের দল আছে। তিনি সম্প্রতি চট্টগ্রামে এসেছেন শ্যুটিং করতে।
দেবশ্রী রায় একজন বিখ্যাত ভারতীয় বাঙালি অভিনেত্রী । ১৯৬৫ সালে ৮ আগস্টে কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি তিনশর বেশি সিনেমায় অভিনয় করেছেন,পেয়েছেন ৪০টিরও বেশি পুরস্কার। তিনি তামিল ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে ‘চিন্তামণি’ নামে অভিনয় করতেন। দেবশ্রী রায় এর জন্ম, বেড়ে উঠা সব কলকাতায়। তার পিতার নাম বীরেন্দ্র কিশর রায় এবং মায়ের নাম আরতি রায়। মায়ের বাড়ি বাংলাদেশে ইশ্বরদীতে।
১৯৬৯ সানে তিনি প্রথম ‘বালক গদাধর’ নামে একটি চলচ্চিত্রে শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয় করেন, যার পরিচালক ছিলেন হরিময় সেন। তিনি কলকাতার এ পি জে ,পার্ক স্ট্রীট শাখার স্কুলের ছাত্রী ছিলেন, যদিও নাচের প্রতি অত্যধিক ঝোঁক থাকার কারণে বেশিদূর এগোতে পারেন নি। তার ডাক নাম চুমকি। দেবশ্রী রায় একজন খ্যাতিমান ওড়িশি নৃত্য শিল্পী। তিনি প্রথমে তার মা এবং বড় বোন পূর্ণিমা রায় এর কাছ থেকে নাচ শিখেন। পরে বন্দনা সেন এবং কেলুচরণ মহাপাত্রের কাছ থেকে তালিম নেন। খুব কম বয়স থেকে তিনি মঞ্চে নৃত্য পরিবেশনের মাধ্যমে পরিচিতি লাভ করেন। তার ‌’নটরাজ’ নামে নিজস্ব একটি নাচের দল আছে। তিনি সম্প্রতি চট্টগ্রামে এসেছেন শ্যুটিং করতে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংবাদটি 16 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ